সোমবার , মার্চ ৩০ ২০২০
সংবাদ শিরোনাম
Home » সারাদেশ » বরিশাল » পটুয়াখালী » কলাপাড়ায় দিন দুপুরে সন্ত্রাসী হামলা ও লুট, গুরুতর আহত-৩, থানায় মামলা 

কলাপাড়ায় দিন দুপুরে সন্ত্রাসী হামলা ও লুট, গুরুতর আহত-৩, থানায় মামলা 

মোয়াজ্জেম হোসেন,পটুয়াখালী প্রতিনিধি।। কলাপাড়ার চম্পাপুর ইউনিয়নের পাটুয়া গ্রামে দিন দুপুরে সন্ত্রাসী হামলায় ৩জন গুরুতর আহত হয়েছে। লুট হয়েছে নগদ ৩ লক্ষ ৫০হাজার টাকা ও স্বর্নালংকারসহ প্রায় ৬ লক্ষ টাকার মালামাল। গুরুতর আহতদের ডাক চিৎকারে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যাওয়ার সময় একটি মটর বাইক আটক করে এবং আহতদের উদ্ধার করে পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আহতরা হলো- মোসাঃ সুইটি বেগম (২৮), মোঃ আনসার গাজী (৬০), মোঃ শাহজালাল (২২)। সন্ত্রাসীদের কাছ থেকে আটককৃত মটর বাইকটি স্থানীয় ইউপি সদস্য আনোয়ান হোসেন এর কাছে জিম্মায় রাখা হয়েছে।

গত ১৯ মার্চ বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার সাথে সাথে স্থানীয়রা গনমাধ্যমে মুঠো ফোনে জানায়। সড়ে জমিনে গেলে দেখা যায়, দেশীয় অস্ত্র রড,দা,ঘর কোপানো, ট্রাংঙ্ক ভাঙ্গাসহ স্থানীয় জনসাধারণ ও গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ।

প্রত্যক্ষদর্শী বয়বৃদ্ধা মোসাঃ রেনু বেগম (৫৫) জানিয়েছেন, আচমকা ১০/১২টি মটর বাইক এসে বাড়ির সামনে থামিয়েই রড ও দা নিয়ে বাড়ির মধ্যে ঢুকে শাহাজালালকে মারধর শুরু করে এবং কেউ কেউ ঘর দরজা কুপিয়ে ঘরে ঢোকে। শাহাজালাল কে বেধরক মারধর করতে থাকলে তার পুত্র বধু মোসাঃ সুইটি বেগম ছাড়াতে গেলে তাকেও ধাক্কা দিয়ে মাটিতে ফেলে দেয় এবং লাথি মারতে থাকে। তার স্বামী বয়বৃদ্ধ মোঃ আনসার গাজী (৬০) সন্ত্রাসীদেরকে অনুনয় বিনয় করলেও তাকেও ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। এতে সে গুরুতর আহত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী মনোয়ারা বেগম জানিয়েছেন, তিনি দুপুরে রান্নার জন্য মাছ কাটতে ছিলেন, এমতাবস্থয় ডাকচিৎকার শুনে ঘটনাস্থানে ছুটে আসেন এবং সন্ত্রাসীদেও তান্ডপ নিয়ন্ত্রনে আনতে বাবা-সোনা এবং তোমরা তার আত্মীয় বললে তাকেও ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। এর পর ঘরে ঢুকে ট্যাংক ভেঙ্গে ঠাকা পয়সা নিয়ে যায়।

স্থানীয় আলম গাজী জানিয়েছেন, সন্ত্রাসী হামলা যারা করেছে তাদের বাড়ি ঘর পাশাপশি গোলবুনিয়া গ্রামের সোবাহান সরদার, শাকিল, ইউসুফ, হিরন মোল্লা, মিরাজ মোল্লা, তামিম, কাওসারসহ আরো ভাড়াটিয়া ১০/১৫ জনের একটি গ্রæপ। কেন সন্ত্রাসী হামলা করেছে ? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সমুদ্রে ইলিশ মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে সমুদ্রের মধ্যে বসেই ওই দিন সকাল ১০টার দিকে ধাক্কাধাক্কি হয়-গুরুতর আহত শাহাজালাল ও বিবাদী শাকিল এবং ইউসুফের সাথে। পরে কিনারায় এসে দুপুর ১২টার দিকে বাড়িতে এসে ব্যাপক মারধর, ঘরদরজা কুপিয়ে তছনছ, ঘরে ঢুকে ট্রাংক ভেঙ্গে ৩ লাখ ৬০ হাজার টাকা স্বর্নালংকার লুট করে নিয়ে যাওয়ার সময় এলাকাবাসী ছুটে এসে সন্ত্রাসীদের একটি মটর বাইক আটক করতে সক্ষম হয়। মটর বাইকটি ওই ওয়ার্ডের ইউিপি সদস্য আনোয়ার হোসেনের কাছে তার বাড়িতে জিম্মায় রাখা হয়েছে।

স্থানীয় গন্যমান্য ব্যাক্তি মোঃ মিলন মুন্সী বলেন, ঘটনা সত্য, যারা গুরুতর আহত হয়েছে তাদেরকে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। যেহেতু পাশাপাশি গ্রাম, শালিশ ব্যাবস্থা করলেও আগে রোগিদের চিকৎসা করানো প্রয়োজন। হামলাকারীদের কাছ থেকে একটি মটর বাইক আটক করা হয়েছে বলেও তিনি জানান।

ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ আনোয়ার বলেন, হামলার ঘটনাটি সত্য, হামলাকারীদের কাছ থেকে এলাকাবাসীর আটককৃত মটরবাইকটি তার বাড়িতে আছে।

এ ঘটনায় গত ২০ মার্চ ১০টা ৪৫ ঘটিকার সময় কলাপাড়া থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে, মামলা নং-১৮/২০।

স্থানীয় সুশীল সমাজের দাবী- বর্তমানে দেশে করোনা ভাইরাসের চেয়ে ভরদুপুরে সন্ত্রাসী তান্ডপের কারণে জনসাধারনের মাঝে ব্যাপক ভাবে আতঙ্ক বিরাজ করছে। অপরাধী যেই হোক দ্রæত গ্রেপ্তার হলে আতঙ্ক কমবে বলে তাদের ধারণা। নছেৎ ওই অপরাধীরা এমনই বেপারোয়া হয়েছে যা দেশের সফল সরকার বাংলাদেশ আওয়ামীলগ সরকারের সুদ্ধি অভিযানকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখানোর মতো একটি উদাহরণ সৃষ্টি করবে। গত ২০ মার্চ থানায় মামলা হলেও গ্রেপ্তার হয়নি কেউ।

এব্যাপারে কলাপাড়া থানা অফিসার ইনচার্জ মনিরুল ইসলাম জানিয়েছেন, আসামী গ্রেপ্তারের জন্য চেষ্টা চলছে।

আরও সংবাদ

খোলা থাকছে কাস্টমস হাউস

আব্দুল করিম, চট্রগ্রাম জেলা প্রতিনিধিঃ সাধারণ ছুটি চলাকালীন নিত্যপণ্য ও জরুরি চিকিৎসা সামগ্রীসহ আমদা‌নি-রফতা‌নি স্বাভা‌বিক …