1. [email protected] : b.m. altajimul : b.m. altajimul
  2. [email protected] : Gk Russel : Gk Russel
  3. [email protected] : Nazrul Islam : Nazrul Islam
  4. [email protected] : Kamrul islam rimon : Kamrul islam rimon
  5. [email protected] : Torik Hossain Bappy : Torik Hossain Bappy
কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে চর বিজয়ের ৬ষ্ঠ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন - শিক্ষা তথ্য
বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০৯:৪৭ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা সফল করতে মৎস্যজীবিদের সচেতনতায় কোষ্টগার্ডের প্রচারাভিযান কলাপাড়ায় ব্রীজের দাবীতে মানববন্ধন ও সমাবেশ ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর পুন: চালু ও মেডিকেল কলেজ স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন শপথ নিলেন নবনির্বাচিত উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ রূপগঞ্জ কাঞ্চন পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী রফিক সমর্থকদের উপর হামলা রূপগঞ্জের ভুলতা স্কুল অ্যান্ড কলেজে কালভার্ট উদ্বোধন বৃক্ষরোপন রূপগঞ্জে সোশ্যাল মিডিয়ায় মিথ্যা অপপ্রচার উপজেলা ছাত্রলীগের প্রতিবাদ ঘূর্ণিঝড় রিমেলের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে নগদ অর্থ সহায়তা বিতরণ তেতুলিয়া হাইওয়ে পুলিশের হয়রানির প্রতিবাদে চালকদের সড়ক অবরোধ মহিপুরে আবাসিক হোটেল থেকে সাবেক বন কর্মকর্তার মরদেহ উদ্ধার

কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে চর বিজয়ের ৬ষ্ঠ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

সংবাদদাতা :
  • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২৩
  • ৫৩ বার দেখা হয়েছে
কলাপাড়া(পটুয়াখালী)প্রতিনিধি ঃ কুয়াকাটা সমুদ্র সৈকতে গভীর সমুদ্রের মাঝখানে জেগে ওঠা পর্যটন স্পষ্ট  চর বিজয় এর ৬ষষ্ঠ বার্ষিকী জমকালো অনুষ্ঠানের মাধ্যমে উদযাপন করা হয়েছে। ওই চরটি খুজে পাওয়া ১১ জনের গড়া কুয়াকাটা  চর বিজয় সোসাইটির আয়োজনে মঙ্গলবার (৪ ডিসেম্বর) রাত সাড়ে ৭ টার দিকে কেক কেটে ও ফানুস উড়িয়ে উৎসবের উদ্বোধন করা হয়। চর বিজয় সোসাইটির সভাপতি ও বঙ্গবন্ধুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খলিলুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ট্যুরিস্ট পুলিশ কুয়াকাটা রিজিওনের এসপি আবুল কালাম আজাদ, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুয়াকাটা পৌরসভার মেয়র আনোয়ার হাওলাদার, কুয়াকাটা প্রেসক্লাব ও কুটুমের সভাপতি  নাসির উদ্দিন বিপ্লব, কুয়াকাটা টুরিস্ট পুলিশ’র অফিসার ইনচার্জ হাসনাইন পারভেজ, কুয়াকাটা টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সভাপতি আনোয়ার হোসেন আনু, কুয়াকাটা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাজী সাঈদ, টোয়াকের সেক্রেটারি জেনারেল কে এম জহির খান। এসময় বক্তব্য রাখেন চর বিজয়  উদ্যোক্তা ও ওই সংগঠনের সদস্য সচিব সাংবাদিক  হোসাইন আমির, সদস্য মোসাম্মদ সীমা আক্তার। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন জাকারিয়া জাহিদ এছাড়া আরো উপস্থিত ছিলেন প্রিন্ট ও  ইলেকট্রিক মিডিয়ার সাংবাদিক বৃন্দ এবং বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। এসময় কুয়াকাটা শিল্পীগোষ্ঠীর পরিবেশনায় এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। কুয়াকাটা থেকে পূর্বকোণ গঙ্গামতি দিয়ে প্রায় ১৭ কিলো দক্ষিণে অবস্থিত এ চরটি। চারদিকে শুধু পানি আর পানির মাঝখানে এই চর বিজয় অবস্থিত। যার আয়তন প্রায় ৫ হাজার একর।  সমুদ্রে সৌন্দর্যের জৌলস বয়ে চলছে। লাল কাকড়া আর লক্ষ লক্ষ অতিথি পাখির বিচারণে আকাশ আর চর মিলে একাকার হয়ে থাকে। দুর থেকে প্রত্যেক ভ্রমন পিপাসুর নজর কাড়ে দ্বীপটি।
দৃষ্টি নন্দিত চর বিজয় ঘুরে দেখা গেছে- পর্যটন নগরী কুয়াকাটা গভীর সমুদ্রে দক্ষিণ পূর্ব কোণে  ১৭ কিলো দক্ষিণে জেলেদের হাইরের চর নাম খ্যাত সন্ধান হয় যা তিন মাস জেগে থাকে আর নয় মাস ডুবে থাকে। চরটি টুরিজমে এ্যাডভান্সার জন্য “নতুনের সন্ধানে আমরা যাচ্ছি আগামী কাল” এই শিরোনামে ফেসবুক পোস্ট দিয়ে সাংবাদিক হোসাইন আমিরের নেতৃত্বে ১১ জন মিলে ট্যুরিস্ট বোট নিয়ে  সুন্দর এই চরটি খুঁজে পান বিজয়ে মাসকে কেন্দ্র করে ওই ট্যুর প্রেমিকরা। পর্যটকদের কাছে আকৃষ্ট করার জন্য ওই চরে নাম রাখা হয় চর বিজয় । যার সাথে মিশে আছে অতিথি পাখীর সমারোহ এবং চরটি জুড়ে রয়েছে লাল কাকড়ার বিচারণ। যেন প্রকৃতি নিপুন হাতে আবিস্কার করেছে চরটি। ইতোমধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক সারা মিলছে। মাত্র দেড় ঘন্টায় পৌছনো গভীর সমুদ্রের এরকম চর জেগে উঠায় কুয়াকাটায় আর একটি দর্শনীয় স্পটের মাত্রা যোগ হলো বলে মন্তব্য করছেন সেখানে যাওয়া ট্যুর অপারেটরা। ১১ জন টিমের সাথে ছিলেন ওইদিন কুয়াকাটা  বঙ্গবন্ধু মাধ্যমিক প্রধান শিক্ষক খলিলুর রহমান, সহকারী শিক্ষক মাও মাঈনুল ইসলাম মান্নান, কুয়াকাটা টুরিস্ট বোট মালিক সমিতির সভাপতি জনি আলমগীর, ফটো সাংবাদিক আরিফুর রহমান, বাউল রেজাউল করিম শাহ, ঢাকা থেকে আসা পর্যটক সিমা আক্তার, সাইদুর রহমান, ইতালি প্রবাসী  মামুন সিকদার, বোট ড্রাইভার রানা ও জাহিদুল। অনুষ্ঠানে সভাপতি শুভেচ্ছা বক্তব্যে বলেন, কুয়াকাটা গভীর সমুদ্রে যে চর বিজয় জেগে উঠেছে। আমি ঘুরতে এসে যা দেখলাম সৃষ্টির যে রহস্য রয়েছে তা এখানেই প্রমান। অজানা অচেনা লক্ষ লক্ষ পাখির কলরব আর লাল কাকড়ার বিচরণে আকড়ে আছে বিশাল এ চরটিতে। এসব দৃশ্য দেখে দেশী বিদেশী পর্যটকের আকৃষ্ট করবে। তাই এই চর বিজয়কে পর্যটনের আওতাভূক্ত করার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানাই। এ ব্যাপারে কুয়াকাটা পৌর মেয়র আঃ বারেক মোল্লা  বলেন, চরটির কথা শুনেছি অনেক সুন্দর আমিও কিছু দিনের মধ্যেই ঐ চর বিজয় পরির্দশনে যাব। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ও  ট্যুরিস্ট পুলিশ কুয়াকাটা রিজওয়ানের এসপি আবুল কালাম আজাদ বলেন,আমরা দেশের বিভিন্ন স্থানে ট্যুর করছি। কিন্তু কুয়াকাটার সমুদ্রে মধ্যে এত সুন্দর একটি দৃশ্য দেখব কল্পনা করেনি। যেন এক অন্য ভুবন। চোখে না দেখলে বিশ্বাস হবে না আমাদের দেশে এরকম একটি চর জেগে উঠছে, এটি কুয়াকাটার জন্য আর্শিবাদ। এটাকে এখন শুধু সরকারি বেসরকারি ভাবে আমাদের ব্রাডিং করে বিশ্বের কছে পৌঁছে দিতে হবে। তা হইলে কুয়াকাটার পর্যটন শিল্পে বিকাশ ঘটবে বলে আমি বিশ্বাস করি।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

নামাজের সময়সূচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৪৬
  • ১২:০১
  • ৪:৩৭
  • ৬:৪৯
  • ৮:১৫
  • ৫:১০
শিক্ষা তথ্য পত্রিকার কোন লেখা, ছবি বা ভিডিও কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: সাইবার প্লানেট বিডি