1. [email protected] : b.m. altajimul : b.m. altajimul
  2. [email protected] : Gk Russel : Gk Russel
  3. [email protected] : Nazrul Islam : Nazrul Islam
  4. [email protected] : Kamrul islam rimon : Kamrul islam rimon
  5. [email protected] : Torik Hossain Bappy : Torik Hossain Bappy
পটুয়াখালী-৩ আসনে আওয়ামী লীগের দুর্গে বিএনপি’র হানার আশংকা - শিক্ষা তথ্য
বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ০১:৫০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা সফল করতে মৎস্যজীবিদের সচেতনতায় কোষ্টগার্ডের প্রচারাভিযান কলাপাড়ায় ব্রীজের দাবীতে মানববন্ধন ও সমাবেশ ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর পুন: চালু ও মেডিকেল কলেজ স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন শপথ নিলেন নবনির্বাচিত উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানবৃন্দ রূপগঞ্জ কাঞ্চন পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী রফিক সমর্থকদের উপর হামলা রূপগঞ্জের ভুলতা স্কুল অ্যান্ড কলেজে কালভার্ট উদ্বোধন বৃক্ষরোপন রূপগঞ্জে সোশ্যাল মিডিয়ায় মিথ্যা অপপ্রচার উপজেলা ছাত্রলীগের প্রতিবাদ ঘূর্ণিঝড় রিমেলের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে নগদ অর্থ সহায়তা বিতরণ তেতুলিয়া হাইওয়ে পুলিশের হয়রানির প্রতিবাদে চালকদের সড়ক অবরোধ মহিপুরে আবাসিক হোটেল থেকে সাবেক বন কর্মকর্তার মরদেহ উদ্ধার

পটুয়াখালী-৩ আসনে আওয়ামী লীগের দুর্গে বিএনপি’র হানার আশংকা

সংবাদদাতা :
  • আপডেটের সময় : বুধবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২৩
  • ২৭৬ বার দেখা হয়েছে

সাজ্জাদ আহমেদ মাসুদ, গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধিঃ- জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দুর্গ হিসাবে খ্যাত সংসদীয় আসন-১১৩, পটুয়াখালী-৩ (গলাচিপা-দশমিনা) আসন। ১৯৯৬ সনের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচন ছাড়া ১৯৯১ সন থেকে সবকটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বিএনপি প্রার্থীকে পরাজিত করে বিস্তর ভোটের ব্যবধানে বিজয় লাভ করেছে। ব্যক্তিগত যোগ্যতার ভিত্তিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী নির্বাচনে ভুল করলে আওয়ামী লীগের বিজয় সুনিশ্চিত এ আসনে বিএনপি সুযোগ বুঝে এ দুর্গে হানা দিতে পারে। এমনটাই মনে করছেন নির্বাচন বিশ্লেষকরা। আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কাঠামো দুর্বল হয় গত ইউপি নির্বাচন থেকে। এ আসনে গলাচিপা উপজেলার ১২ ইউনিয়নে মধ্যে চেয়ারম্যান পদে দলীয় নেতৃস্থানীয়দের নৌকার প্রার্থীর বিপক্ষে অবস্থান নেয়ায় ৫টিতে ভূমিধ্বস পরাজয় ঘটে। দশমিনার ৭টি ইউনিয়নেও একই অবস্থা ঘটে। সূত্র জানায়, কমিটি গঠনে গলাচিপা পৌরসভাসহ উপজেলার প্রতি ইউনিয়নে কাউন্সিল হলেও কোনখানেই তৃণমূলের মতামত বা ভোট নেয়া হয়নি। বাদ দেয়া হয়েছে দীর্ঘদিনের ত্যাগী নেতাদের। কোটারি স্বার্থ রক্ষার জন্য হাইব্রিড ও ভূঁইফোড়দের নিয়ে গঠন করা হয়েছে ইউনিয়ন কমিটি। এতে টাকারও লেনদেন করা হয়েছে বলে পানপট্টি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন এ দাবি করেন। গলাচিপা উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি থেকে পুরানো ২৩জন নেতাকে বাদ দিয়ে গত বছর নতুন কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানান পদবঞ্চিত নেতা বাহাদুর হাওলাদার। এমন অবস্থা হয়েছে দশমিনা উপজেলায়ও। ফলে সাংগঠনিক অবস্থা হ-য-ব-র-ল। মনোনীত প্রার্থীর পক্ষে দলটিকে একাট্টা করা কতখানি সম্ভব হবে তা নিয়ে শংকা থেকেই যাচ্ছে। দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন ঘিরে বহুধাবিভক্ত আওয়ামী লীগ, এ আসনে আগামী সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগে প্রার্থীর ছড়াছড়ি। এদের মধ্যে বর্তমান এমপি এস এম শাহজাদা, লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) আবুল হোসেন, সাবেক প্রতিমন্ত্রী প্রয়াত আখম জাহাঙ্গীর হোসাইনের ছেলে আসম জাওয়াদ সুজন, এডভোকেট মু. ফকরুল ইসলাম মুকুল, যুবলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা কামরান শাহীদ প্রিন্স মহাব্বত, গলাচিপা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অধ্যাপক সন্তোষ দে, দশমিনা উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি আবদুল আজিজ, সাধারন সম্পাদক ইকবাল মাহমুদ লিটন, দশমিনা উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান এডভোকেট শওকত হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্দা কাজী আলমগীর, এডভোকেট মো. ফোরকান মিঞা, কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আরিফুর রহমান টিটু, ইকবাল হোসেন জোমাদ্দার, আইনজীবী ফজলুর রহমান, জেলা কৃষক লীগ নেতা তছলিম সিকদারসহ আরও বেশ কয়েকজন নেতা মনোনয়ন চাইবেন বলে জানা গেছে। এদের মধ্যে বর্তমান এমপি এস এম শাহজাদা, লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) আবুল হোসেন, সাবেক প্রতিমন্ত্রী প্রয়াত আখম জাহাঙ্গীর হোসাইনের ছেলে আসম জাওয়াদ সুজন, এডভোকেট মু. ফকরুল ইসলাম মুকুল, যুবলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা কামরান শাহীদ প্রিন্স মহাব্বত দীর্ঘদিন ধরে মাঠে সক্রিয় রয়েছেন। এদিকে লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) আবুল হোসেন ও এস এম শাহজাদার মধ্যে শো ডাউনের ক্ষেত্রে চলছে তুমুল প্রতিযোগিতা। একজন আকেরজনকে ট্রাম্প কার্ড মারছেন। এক সপ্তাহ এমপি এস এম শাহজাদা গলাচিপা পৌরশহরে শো ডাউন করেছেন। এর কয়েকদিন না যেতেই লেফটেন্যান্ট জেনারেল (অব.) আবুল হোসেন বিশাল জন সমাবেশ করেছেন। এ কারণে দলীয় কোন্দল চরমে। নির্বাচনের আগে এ অবস্থার নিরসন না হলে বিএনপি’র দখলে চলে যাওয়ার আশংকা রয়েছে আওয়ামী লীগের এ দুর্গটি। কলাগাছিয়া ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান ও গলাচিপা উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মো. দুলাল চৌধুরী, পানপট্টি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস মেলকারসহ অনেক ত্যাগী নেতা এ রকম মতামত ব্যক্ত করেন। জানতে চাইলে এ প্রতিবেদককে জেনারেল আবুল হোসেন জানান, দীর্ঘদিন রাষ্ট্র্রের নিরাপত্তা রক্ষার দায়িত্বে কাজ করে তিনি অবসর নিয়েছেন। সদগায়ে জারিয়া হিসাবে এখন জনগণের সেবার ব্রত নিয়ে মাঠে নেমেছেন। দশমিনা ও গলাচিপা উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম, হাট-বাজারে একাধিকবার জনগণের সাথে সাক্ষাত করেছেন। এমনকি শান্তি সমাবেশও করেছেন। জনগণের অভূতপূর্ব সারা পেয়েছেন। তাকে মনোনয়ন দেয়া হলে জনগণের সেবার পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্ন স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে সহযোগী হিসাবে কাজ করতে চান তিনি। এদিকে বর্তমান এমপি এস এম শাহজাদা এমপি নির্বাচিত হয়েই গুটি কয়েক মানুষের ঘেরাটোপে আটকে পড়েন। এদের বাইরে গিয়ে তিনি কোন কাজই করতে পারেননি। সাধারণ মানুষের ধরা ছোঁয়ার বাইরে ছিলেন তিনি। এদের কথার বাইরে তিনি কোন কাজ করতে পারেননি। প্রথম দিকে কিছু কাজ হলেও গত ৫ বছরে এম পি’র কোটার বিশেষ বরাদ্দের কোটি কোটি টাকার প্রকল্পগুলোর কাজ হয় নাই বললে চলে। সামান্য পরিমান কাজ তার সমর্থিত আওয়ামী লীগ নেতাদের বরাদ্দ দেয়া হলেও অধিকাংশ কাজ বিএনপি’র লোকজনকে গোপনে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এমনকি গত অর্থবছরে এলজিইডির অধীন লেবার কন্ট্রাকটিং সোসাইটির (এলসিএস) এর প্রায় ৫ কোটি টাকার এমপি’র মাধ্যমে হাতিয়ে নিয়েছেন বিএনপি’র লোকজন। এম পি’র কোটার গভীর নলকূপ নিয়েও হয়েছে দুর্নীতি। প্রত্যন্ত গ্রামের জন্য বরাদ্দ করা হলেও নিয়ম নীতির তোয়ক্কা না করে গলাচিপা পৌর শহরে এসব নলকূপ বসানো হয়েছে।সুবিধাভোগীদের কাছ থেকে তদবিরবাজরা এর বিনিময়ে আদায় করেছে টাকা। বর্তমান সাংসদ এস এম শাহজাদা তার বিরুদ্ধে আনীত সব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, নিন্দুকের কাজই তো নিন্দা করা। প্রধানমন্ত্র্রী শেখ হাসিনার অঙ্গীকার বাস্তবায়নে গত পাঁচ বছর দলের ও জনগণের জন্য নিরলস কাজ করেছি। মনোনয়ন চাইবো। আশাকরি বিবেচনা করে দল আমাকে মনোনয়ন দিবে। বিএপি’র অবস্থান- মাঠে বিএনপি’র প্রার্থীদের এখন পর্যন্ত কোন তৎপরতা নেই। তবে দলটির ওয়ার্ড পর্যায় থেকে শুরু করে ইউনিয়ন ও উপজেলা কমিটি আগের যে কোন সময়ের চেয়ে সুসংগঠিত। হাসান মামুন, গোলাম মাওলা রনি, গোলাম মোস্তফা ও প্রয়াত সাবেক এমপি আলহাজ্জ্ব শাহজাহান খানের ছেলে শিপলু খানের নাম শোনা গেলেও দলের নেতাকর্মীরা হাসান মামুনকেই মনোনয়ন দেয়ার প্রত্যাশা করছেন। একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপি’র হয়ে নির্বাচন করলেও গত ৫ বছরে এ এলাকায় গোলাম মাওলা রনিকে দলীয় কোন কার্যক্রমে অংশ নিতে দেখা যায়নি। এদিকে জামায়াতে ইসলামির ১২ থেকে ১৩ হাজারের একটি ভোট ব্যাংক থাকলেও ইসলামী আন্দোলনের সমর্থক অনেক বেশি বলে দাবি করছেন দলের নেতারা। তবে এ দলের কোন প্রার্থীর এখন পর্যন্ত কোন প্রচার প্রচারনা নেই। এ আসনে জাতীয় পার্টির কোন তৎপরতা পরিলক্ষিত হয়নি। হাল নাগাদ গলাচিপা উপজেলায় ভোটার রয়েছেন ২ লাখ ২২ হাজার ৮১২ জন ও দশমিনা উপজেলায় ভোটার রয়েছেন ১ লাখ ১৪ হাজার ১৮৩ জন। দলীয় নেতাকর্মীরা ছাড়া বিগত নির্বাচনগুলোতে ভাসমান ভোটারদের ভোট প্রয়োগের ক্ষেত্রে আঞ্চলিতাকে প্রধান্য দিতে দেখা গেছে। প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচন হলে যোগ্য প্রার্থী মনোনয়নে ব্যর্থ হলে আওয়ামী দুর্গ হাতছাড়া হয়ে যাওয়ার আশংকা করছেন রাজনৈতিক মহল।বিএনপির প্রকাশ্যে তৎপরতা না থাকলেও সুসংগঠিত উজ্জ্বীবিত দলটির নেতাকর্মীরা। শেষ পর্যন্ত বিএনপি নির্বাচনে অংশ নিলে অন্য যে কোন সময়ের তুলনায় কঠিন হয়ে পড়বে আওয়ামী দুর্গ দখলে রাখা।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

নামাজের সময়সূচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৪৬
  • ১২:০১
  • ৪:৩৭
  • ৬:৪৯
  • ৮:১৫
  • ৫:১০
শিক্ষা তথ্য পত্রিকার কোন লেখা, ছবি বা ভিডিও কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: সাইবার প্লানেট বিডি