মঙ্গলবার , মে ২৬ ২০২০
সংবাদ শিরোনাম
Home » অনিয়ম » মুক্তির জন্য মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে খোলা চিঠি

মুক্তির জন্য মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে খোলা চিঠি

বিশেষ প্রতিনিধিঃ     মহামান্য রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছি,
বিচার বঞ্চিত রফিকুল আমিনের মুক্তির দাবিতে তার পরিবার সহ ডেসটিনির ৪৫ লক্ষ পরিবারের পক্ষে আমি একজন বিনিয়োগকারী আপনার কাছে আকুল আবেদন।
এই ক্রান্তিলগ্নে বিনা বিচারে দীর্ঘ আট বছরের বেশি জেলে বন্দী মিডিয়া ব্যক্তিত্ব বৈশাখী টেলিভিশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও দৈনিক ডেসটিনির সম্পাদক এবং ডেসটিনি ২০০০ লিঃ এর চেয়ারম্যান মোঃ হোসাইন এবং এম ডি মোঃ রফিকুল আমিন আজ অসুস্থ, তিনি আজ জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে।এবং ভয়াবহ করোনা ভাইরাস আতঙ্কে আতঙ্কিত।
সারাদেশ যখনই স্থবির। সকলেই যখন গৃহবন্ধি। ঠিক তেমনি ভাবে মোঃ হোসাইন ও মোঃ,রফিকুল আমিনের স্ত্রী ও সন্তানরা তাদের একমাত্র অভিভাবকের জন্য চিন্তিত হয়ে পড়েছেন। ভয়ে আতঙ্কিত হয়ে অত্যন্ত মানবেতর জীবনযাপন করছেন।
এছাড়াও লক্ষ লক্ষ বিনিয়োগকারী আজ দিশাহারা এবং চিন্তিত। এই দুই পরিচালকদের অবতর্মানে বিনিয়োগকৃত অথ’ফেরত পাওয়া অনিশ্চিতয়তা দেখা দিচ্ছে। হে আল্লাহ পবিত্র এই মহান মাস রমজানে সকলকে হেদায়েত দান করুন।
 এই নিরাপরাধ ব্যক্তিটি মিডিয়া ব্যক্তিত্ব মোঃ রফিকুল আমিন দেশের কল্যাণে কাজ করতে চেয়েছিলেন, এটাই ছিল তাঁর বড় অপরাধ?  তিনি বেকার মুক্ত বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন দেখেছিলেন, এটাই ছিল তাঁর অপরাধ?  তিনি চিকিৎসা ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন আনতে চেয়েছিলেন, এটাই ছিল তাঁর অপরাধ?  তিনি রুগ্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলি পুনঃরায় চালু করে ব্যাপক মানুষের কর্মসংস্থানের সৃষ্টি করতে চেয়েছিলেন, এটাই ছিল তাঁর অপরাধ? তিনি ট্রি-প্লান্টেশন এর মাধ্যমে বাংলাদেশে ব্যাপক বনায়নের মাধ্যমে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করতে চেয়ে ছেয়েছিলেন, এটাই ছিল তাঁর অপরাধ? তাই মিথ্যা অপরাধে দীর্ঘ আট বছরের বেশী বিনা বিচারে জেলে অন্ধকার কারাগারে  জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে। বর্তমানে করোনার কারণে মানুষটি ভীতসন্ত্রস্ত। নানা রোগে আক্রান্ত এই মানুষটি।
 মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে ডেসটিনির ৪৫ লাখ পরিবারের মানবিক দাবি। আপনি তাকে মুক্তি দিন। এতে করে মুক্তি পাবে  ৪৫ লক্ষ পরিবার।
[[যেহেতু কাউকে খুন,সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজি,টেন্ডারবাজি, মাদক ব্যবসা সাথে ওনারা জড়িত নয়। বিনিয়োগকারীদেরও কোন অভিযোগ নেই।]]
তাই মহামান্য রাষ্ট্রপতি আপনার মানবিক বিবেক বিবেচনায় করে এই দুই পরিচালকদের মুক্তি দিয়ে তাদের পরিবারের ও ডেসটিনির সাথে জড়িত ২৫ লাখ যুবক ও ১৩ লাখ নারীর।  যারা ডেসটিনির সাথে সরাসরি যুক্ত থেকে এখান থেকে তাদের জীবন জীবিকা নির্ভর করতো। ডেসটিনি গ্রুপ এর লক্ষ লক্ষ বিনিয়োগকারীদের সাভাবিক জীবনের নিশ্চিতয়তা ফিরিয়ে দিন।
নিবেদন
নজির আহম্মদ, দৈনিক ডেসটিনি, এবং একজন  সাধারন বিনিয়োগকারী।

আরও সংবাদ

নয় বছর আগেই ঈদ আনন্দ ভুলে গিয়েছে ৪৫ লক্ষ পরিবার

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ  ঈদ মানে খুশী, ঈদ মানে আনন্দ। এটা আমাদের সকলেরই জানা। মুসলমানদের সবচেয়ে বড় …