শিক্ষা তথ্য

মেডিকেলে চান্স পাওয়া ইসমাইলের দায়িত্ব নিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান

তালতলী (বরগুনা) প্রতিনিধিঃ দিনাজপুরে এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পাওয়া। গরীব মোধাবী মোঃ ইসমাইল এর পড়াশুনার দায়ীত্ব নিয়েছেন বরগুনার তালতলী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের মানবীক চেয়ারম্যান রেজবি-উল-কবির।

বুধবার (০৭ এপ্রিল) সন্ধ্যায়, মেধাবী শিক্ষার্থী ও তার বাবার সাথে কথা বলে এই আশ্বাস দেন। এসময় ইসমাইলের প্রাথমিক শিক্ষক আঃ মজিদ জোমাদ্দার সহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রেজবি-উল-কবির বলেন, বর্তমান সমাজে মানুষের মানসিকতার পরিবর্তন হচ্ছে। দেশ যেমন এগিয়ে যাচ্ছে, মানুষও মানুষের সহযোগিতায় এগিয়ে আসছে। আর তালতলী উপজেলার ছেলে হিসেবে মেডিকেলে চান্স পেয়েছে, তাই ইসমাইলের লেখা পড়ার জন্য আমি সহযোগিতা করব। পড়াশুনা করে, ভাল ডাক্তার হয়ে মানুষের সেবা করবে এই প্রত্যাশা করি।

উপজেলার বড়বগী ইউনিয়নের মোমেসে পাড়া এলাকার দিনমজুর বাবা নুরুল ইসলাম বেপারীর এক মাত্র ছেলে ইসমাইল। মোমেসে পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে লেখাপড়ার সময়ই মেধাবী ছিলেন। এরপর অর্থাভাবে টিউশনি করিয়ে পড়াশুনা চালিয়েছেন। এরপরও ইসমাইল তালতলী সরকারি মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে ২০১৭ সালে জিপিএ-৪.৯১ পেয়ে এসএসসি এবং তালতলী সরকারি কলেজ থেকে ২০১৯ সালে জিপিএ-৪.৩৩ পেয়ে এইচএসসি পাস করেন। ২০১৯ সালে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে গনিত বিভাগে চান্স পান কিন্তু গতবছরের রেজাল্ট আশানুরুপ না হওয়ায় ২০২০ সালে এইচএসসি পরীক্ষায় আবারও অংশ গ্রহন করে জিপিএ-৫ অর্জন করেন। ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় আংশগ্রহন করে মেডিকেলে ভর্তির সুযোগ পায়।

বাবা নুরুল ইসলাম বেপারীর বলেন, অনেক কষ্টে থাহার পরও পোলাডারে লেহাপড়ার খরচ মুই দেতে পারিনাই, পোলাপান পড়াইয়া ও লেহাপড়া হরছে। এ্যহোন ডাক্তারি পড়ার চান্স পাওয়ার পর অনেক চিন্তায় পড়ছালাম। উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পোলাডার লেহাপড়ার দায়িত্ব নেছে। তাই এখন মুই চিন্তা মুক্ত অইছি। মুই উপজলা চেয়ারম্যানসহ সকলের জন্য দোয়া হরি।

মোঃ ইসমাইল হোসেন বলেন, দিনাজপুরে এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজে ভর্তির সুযোগ পাওয়ার পরে এক ধরণের অনশ্চিয়তা কাজ করছিল মনের মধ্যে। উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের মানবীক চেয়ারম্যান (রেজবি-উল-কবির) সহ অনেকে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন সে জন্য আমি কৃতজ্ঞ। সকলের কাছে দোয়া চাই। যাতে ভাল লেখা পড়া করে ভালো একজন ডাক্তার হয়ে সকলের সেবা করতে পারি।

শেয়ার করুন