1. [email protected] : Gk Russel : Gk Russel
  2. [email protected] : Nazrul Islam : Nazrul Islam
  3. [email protected] : pbangladesh :
রাজধানীতে যানজট দূর্ভোগ কমাতে কিছু প্রস্তাব - শিক্ষা তথ্য
বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০৩:৫৯ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
শার্শা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিজয়ী সোহারাব,রহিম ও সালমা রূপগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন শঙ্কা রূপ নিল বাস্তবে, প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী রানুর ভরাডুবি বিপুল ভোটে বিজয়ী হাবিব লামার উপজেলা নির্বাচনে বিজয়ী আবারও চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল নতুন ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলেন দুইজন পটিয়া উপজেলা জাতীয় পার্টির সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি অনুমোদন আহবায়ক খোরশেদ আলম, সদস্য সচিব নুরুল ইসলাম কলাপাড়ায় মন্দিরের প্রতিমা ভেঙে স্বর্নের চোখ নিয়ে গেছে দূর্বৃত্ত কলাপাড়ায় প্রাকৃতিক দুর্যোগ সংক্রান্ত সচেতনতা বিষয়ক কর্মশালা মহিপুরে মসজিদ ছুয়ে ভেটের প্রতিশ্রুতি দিলেই মিলছে জেলে চাল, বঞ্চিত প্রকৃত জেলেরা কলাপাড়ায় হিফজ সমাপনী হাফেজ ছাত্রদের দস্তারবন্দী মার্কিন নিষেধাজ্ঞা: যা যা করতে পারবেন না সাবেক সেনাপ্রধান আমাদের সমাজে ভালো মানুষের খুব অভাব

রাজধানীতে যানজট দূর্ভোগ কমাতে কিছু প্রস্তাব

সংবাদদাতা :
  • আপডেটের সময় : সোমবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২৩
  • ৭৭ বার দেখা হয়েছে

রাকিব হোসেন মিলনঃ রাজধানীতে ব্যবহৃত ৭০ শতাংশ গাড়িই ব্যক্তি পর্যায়ের দখলে,গানিতিক অংকে এটি ব্যবহার করেন মাত্র ১১ শতাংশ যাত্রী। ঢাকার পুরোনো বাস প্রত্যাহার করে ৪,০০০ আধুনিক নতুন বাস (এসি, নন এসি ও সাধারণ) আলাদা লেনে পরিচালনা করলে প্রাইভেট গাড়ি ব্যবহারকারীরা বাসে চলাচল করবেন বলে মনে করেন নগরবাসী। একটি জরিপের পর্যালোচনায় বেরিয়ে এসেছে রাজধানীতে ৫৩% যাত্রী গণপরিবহন ব্যবহার করেন। ১১% যাত্রী ব্যবহার করেন ব্যক্তিগত গাড়ি। অথচ ঢাকার ৭০% রাস্তা ব্যক্তিগত গাড়ি দিয়ে দখল করে রেখেছেন তারা।ঢাকায় মোটরসাইকেলের সংখ্যা প্রায় ১৩ লাখ আর রিকশারতো কোনো সুনির্দিষ্ট হিসেব নেই। রোড সেফটি ফাউন্ডেশন যানজট নিয়ন্ত্রণ ও ব্যবস্থাপনার কৌশল নিয়ে কাজ করেন।এই প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান এ আই মাহবুব উদ্দিন আহমেদ বলেন, “ঢাকার যানজট নিয়ন্ত্রণে ফ্লাইওভার, ওভারপাস, ইউলুপ, এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে নির্মাণ করা হয়েছে। তারপরও যানজট কমছে না বরং বাড়ছে। কারণ এসব প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে যথেষ্ট মাত্রায় স্টাডি করা হয়নি। তিনি আরো বলেন, “ঢাকায় যে পরিমাণে মানুষের চাপ বাড়ছে, তাতে মেট্রোরেল ও সাবওয়ে যানজট কমাতে পারবে না। মেট্রোরেল ও সাবওয়েতে কয়েক লাখ কোটি টাকা ব্যয় হচ্ছে। এই বিপুল অর্থ ব্যয়ের সঙ্গে আর মাত্র ১০ থেকে ১২ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকার পুরোনো বাস প্রত্যাহার করে ৪,০০০ আধুনিক নতুন বাস এসি, নন এসি ও সাধারণ তিন ক্যাটাগরিতে বিভক্ত করে রুট ফ্রাঞ্চাইজি পদ্ধতিতে পরিচালনা করলে এবং বাসের জন্য আলাদা লেন ব্যবস্থা করলে প্রাইভেট গাড়ি ব্যবহারকারীরা বাসে চলাচল করতে পারতেন। ঢাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে নিজস্ব বাস সার্ভিস বাধ্যতামূলক করার দাবি তুলেছেন অনেকেই। এটিও এখন অন্যতম ফেক্টর। প্রয়োজনে বাস ক্রয়ে সরকারি ঋণের ব্যবস্থা করতে হবে। এতে প্রাইভেট গাড়ির ব্যবহার কমবে। বাইসাইকেল লেন তৈরি করলে কয়েক লাখ ছাত্র-যুবক বাইসাইকেলে যাতায়াত করতে পারবেন। এসব উদ্যোগ গ্রহণ করলে রাজধানীর যানজট কিছুটা হলেও নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে বলে আশা করা যায়।যানজট কমলে ঢাকায় মোটরসাইকেল ব্যবহার ব্যাপকভাবে কমবে। একইসঙ্গে প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণ ও মফস্বল শহরকেন্দ্রিক কর্মসংস্থান সৃষ্টি করলে ঢাকামুখী জনস্রোতও কমবে। এসব সমন্বিত ও টেকসই উদ্যোগের ফলে রাজধানীর যানজট ব্যাপক মাত্রায় হ্রাস পাওয়ায় দেশে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি বেগবান হবে। সড়ক পরিবহনে বিশৃঙ্খলার পেছনে সুবিধাবাদী গোষ্ঠী রয়েছে, যারা নানা অজুহাতে সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়ন করতে দিচ্ছে না। এই খাতে চাঁদাবাজি ও দুর্নীতির বিরাট সুযোগ থাকায় গোষ্ঠীটি হীনস্বার্থে সড়ক পরিবহন খাতে অব্যবস্থাপনা টিকিয়ে রাখছে। সমস্যাটি রাজনৈতিক হওয়ায় যখন যে দল ক্ষমতাসীন থাকে, তখন সেই দলের লোকজন সড়ক পরিবহন খাত নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে চাঁদাবাজি করে বেড়ায়। সড়ক পরিবহন খাতে চাঁদাবাজিকে অচিরেই নিষিদ্ধ করতে হবে। এ ছাড়াও দক্ষ চালক তৈরির উদ্যোগ বৃদ্ধি করতে হবে, চালকদের বেতন-কর্মঘণ্টা নির্দিষ্ট করতে হবে, বিআরটিএর সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে হবে, পরিবহন মালিক-শ্রমিক, যাত্রী ও পথচারীদের প্রতি ট্রাফিক আইনের সুষ্ঠু প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে, মহাসড়কে স্বল্পগতির যানবাহন বন্ধ করে এগুলোর জন্য সার্ভিস রোড তৈরি করতে হবে, পর্যায়ক্রমে সব মহাসড়কে রোড ডিভাইডার নির্মাণ করতে হবে, গণপরিবহনে চাঁদাবাজি শতভাগ বন্ধ করতে হবে, রেল ও নৌ-পথ সংস্কার করে সড়ক পথের ওপর চাপ কমাতে হবে, টেকসই পরিবহন কৌশল প্রণয়ন করতে হবে, সড়ক পরিবহন আইন বাঁধাহীন বাস্তবায়ন করতে হবে। আমরা মাতৃভূমি বাংলাদেশ কে ভালোবাসি।দেশের রাজধানীতে ঢাকা আমাদের মূল প্রানকেন্দ্র।ঢাকা কে আরো গতিশীল, সতেজ, সবুজ ও প্রশান্তিদায়ক করে গড়ে তুলতে সার্বক্ষণিক প্রচেষ্টা চালানো উচিত বলে মনে করছি। সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টা থাকলে একটু একটু করে আমরা পরিবর্তন দেখতে পারবো। সুশৃঙ্খল ঢাকার স্বপ্ন দেখি প্রতিনিয়ত। আসুন রাজধানী ঢাকা কে প্রশান্তির ঢাকা হিসেবে গড়ে তুলি।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

নামাজের সময়সূচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৫২
  • ১১:৫৮
  • ৪:৩৩
  • ৬:৪০
  • ৮:০৩
  • ৫:১৩
শিক্ষা তথ্য পত্রিকার কোন লেখা, ছবি বা ভিডিও কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: সাইবার প্লানেট বিডি