1. [email protected] : Gk Russel : Gk Russel
  2. [email protected] : Nazrul Islam : Nazrul Islam
  3. [email protected] : pbangladesh :
শিশু শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের জন্য খালের ওপর নির্মিত কাঠের ব্রিজ - শিক্ষা তথ্য
সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১২:৩৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সাংবাদিক রেজাউল করিমের ভাগিনা জুনাইদ আহসান’র শুভ জন্মদিন রূপগঞ্জের বিস্মিল্লাহ আড়তদারদের ভয়ভীতি ও জিম্মি করে দুই কোটি টাকা চাঁদা আদায়ের প্রতিবাদে মানববন্ধন বিক্ষোভ পলাশীকুড়া জনতা উচ্চ বিদ্যালয়ে একটি স্বাস্থ্য মেলার উপর শিক্ষামূলক এবং ইন্টারেক্টিভ ইভেন্ট এমপি আনার হত্যা: কলকাতা গেল ডিবির প্রতিনিধি দল জুলাই মাসেই হবে ১৮ তম নিবন্ধনের লিখিত পরীক্ষা ১৮ জুন তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু শান্তিরক্ষী নিয়ে ডয়চে ভেলের প্রতিবেদন পক্ষপাতমূলক: আইএসপিআর ওকন্যারা হযরত ওমর ফারুক (রা.) জামে মসজিদে সৈয়দ আহমদ শাহ সিরিকোটি (রা.) ওরশ শরীফ অনুষ্ঠিত শ্রীপুরে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান রাজনকে গণসংবর্ধনা প্রদান বন্দরে সায়রা রিসোর্টে জয় গোবিন্দ উচ্চ বিল্যালয় ৮৮ ব্যাচের আনন্দ ভ্রমণ

শিশু শিক্ষার্থীদের যাতায়াতের জন্য খালের ওপর নির্মিত কাঠের ব্রিজ

সংবাদদাতা :
  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৩ নভেম্বর, ২০২৩
  • ৬১ বার দেখা হয়েছে
নয়ন দাস,কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধিঃকুড়িগ্রামের সদর উপজেলার মোগলবাসা ইউনিয়নের উত্তর মাঝের চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি নদীভাঙনে স্থানান্তর হওয়ায় দীর্ঘদিন ধরে বেহাল অবস্থা ছিল। পাঠদানের পরিবেশ ও যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় স্কুলটিতে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি ছিল হতাশা ব্যঞ্জক। বর্ষা মৌসুমে নৌকা করে পারাপারে ভয়ে অনেক অভিভাবক বাচ্চাদের স্কুলে পাঠাতেন না। যে দু-চারজন নিয়মিত ছিল তাদের অভিভাবকরাও দুশ্চিন্তায় থাকতেন। বিষয়টি উপজেলা প্রশাসনের নজরে এলে কুড়িগ্রাম সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. রাশেদুল হাসান বিদ্যালয়টি পরিদর্শন করেন। পরে উপজেলা প্রশাসনের আর্থিক সহযোগিতায় খালের ওপর একটি কাঠের সেতু তৈরি করা হয়। তিনদিন ধরে ওই কাঠের সেতু দিয়ে পারাপার হচ্ছেন শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও গ্রামবাসী। বিদ্যালয়টির চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী মোছা. আফরোজা খাতুন বলেন, খালে সব সময় পানি থাকায় আমরা স্কুলে আসতে পারতাম না। অনেক সময় পা পিছলে বই খাতা জামা কাপড় ভিজে যেত। সেদিন আর ক্লাস করতে পারতাম না। সেই ভোগান্তি দূর হয়েছে। এখন আমরা সেতু পেয়েছি। আমাদের আর পানিতে ভিজে স্কুলে যেতে হবে না। এ জন্য ইউএনওকে ধন্যবাদ জানাই। অভিভাবক মো. আব্দুল আলীম বলেন, নদীভাঙনে স্কুলটি স্থানান্তর করে মাঝের চরে এনে ভালো করলেও যাতায়াত ব্যবস্থা না থাকায় বাচ্চাদের স্কুলে পাঠাইনি। এখন সেতু হয়েছে গত তিন দিন ধরে আমার মেয়ে দুটো স্কুলে যাচ্ছে। এখন বাচ্চাদের নিয়ে আর দুশ্চিন্তা নাই। তবে স্থায়ী ব্রিজ হলে ভালো হত। স্থানীয় বাসিন্দা নুর ইসলাম বলেন, কাঠের সেতু হওয়ায় বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষার্থীসহ কয়েক হাজার মানুষের যাতায়াতের ভোগান্তি দূর হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের এমন উদ্যোগ সত্যি প্রশংসার দাবিদার। প্রধান শিক্ষক মো. আলতাফ হোসেন বলেন, স্কুলের যাতায়াত ব্যবস্থা না থাকায় অনেক অভিভাবক তাদের বাচ্চাকে এ স্কুলে দিতেন না। আর যারা এ স্কুলের শিক্ষার্থী তাদের অনেকেই এমন অবস্থায় ক্লাসে আসতো না। এখন সেই ভোগান্তি দূর হয়েছে। গ্রামবাসীও উপকৃত হয়েছে। আশা করছি স্কুলের শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি বাড়ার পাশাপাশি আগামী বছর থেকে নতুন শিক্ষার্থীর সংখ্যাও বাড়বে।
কুড়িগ্রাম সদর ইউএনও রাশেদুল হাসান বলেন, নদীভাঙনের কারণে বিদ্যালয়টি স্থানান্তর করা হয়েছিল। এ বিদ্যালয়ে যাতায়াত ও অবকাঠামোগত সমস্যা ছিল। পরে বিদ্যালয়টির পাঠদানের পরিবেশ ফিরিয়ে আনা হলেও খাল পারাপারের কারণে শিক্ষার্থীদের নিয়মিত উপস্থিতি ছিল খুবই কম। পরে সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নিই। কংক্রিটের খুঁটি দিয়ে কাঠের সেতু তৈরি করে শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি দূর করা হয়েছে। ভবন নির্মাণেরও বরাদ্দ এসেছে। দ্রুত নির্মাণের কাজ শুরু হবে।

আপনার সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

নামাজের সময়সূচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৫০
  • ১১:৫৯
  • ৪:৩৪
  • ৬:৪২
  • ৮:০৬
  • ৫:১২
শিক্ষা তথ্য পত্রিকার কোন লেখা, ছবি বা ভিডিও কপি করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ।
ডিজাইন ও কারিগরি সহযোগিতায়: সাইবার প্লানেট বিডি