প্রতারক প্রদীপ গ্রেফতার হলেও ধরাছোয়ার বাইরে রেহেনা

জেলার খবর - শিক্ষা তথ্য

প্রতারক প্রদীপ গ্রেফতার হলেও ধরাছোয়ার বাইরে রেহেনা
স্টাফ রিপোর্টারঃ রংপুরের প্রতারক প্রদীপ চন্দ্র বর্মন নারায়নগঞ্জে এসে মানবাধিকার সংগঠন ও সাংবাদিকতার নাম দিয়ে চালাচ্ছিল অপকর্ম। বহু অপকর্মের হোতা প্রদীপ চন্দ্র বর্মনকে সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে র‌্যাব-১১ গ্রেফতার করলেও প্রদীপের ঘনিষ্ঠ সহযোগি রেহেনাসহ প্রতারক সিন্ডিকেট রয়েছে ধরাছোয়ার বাইরে। তবে বেশ কয়েকজন অপরাধী প্রশাসনের নজরে রয়েছে বলে জানা গেছে। জানা যায়, সমাজের জন্য আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইন প্রয়োগকারী সংস্থা ও তালাশ নিউজ টিভি ৭৯ এর চেয়ারম্যান পরিচয় দিয়ে প্রতারক প্রদীপ চন্দ্র বর্মন ভুয়া আইডি কার্ড তৈরি করে এবং ওয়াকিটকি সেট, মনোগ্রাম সম্বলিত জ্যাকেট ও হ্যান্ডকাফ দেখিয়ে বিভিন্ন মানুষের সাথে প্রতারণা এবং চাঁদাবাজি করে আসছিল। আর এই প্রতারণা ও চাঁদাবাজির অন্যতম সহযোগী হলো মানবাধিকার নামধারী ও মক্ষিরানী ফেরদৌসি আক্তার রেহেনা। রেহেনা ছিল সংগঠনের ভাইস চেয়ারম্যান। কে এই ফেরদৌসি আক্তার রেহেনা? তার সম্পর্কে জানা যায়, দীর্ঘ কয়েক বৎসর যাবৎ কাবিন বাণিজ্য এবং বিভিন্ন পুরুষকে নারী দিয়ে ব্ল্যাকমেইলিং করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেওয়াই ছিল তার পেশা। ফতুল্লা থানার সস্তাপুর এলাকার রেহেনার প্রায় পাঁচজন স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা মোকদ্দমা করে জেল খাটিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। রেহেনার ছেলে এক ঘরের এবং মেয়ে আরেক ঘরের যা বর্তমানে বিদ্যমান রয়েছে। এছাড়াও রেহেনার সাথে রয়েছে আরও কয়েকজন প্রতারক সিন্ডিকেট। রেহেনা একজন নারী হয়ে বিভিন্ন মানুষকে সুকৌশলে প্রতারণার ফাঁদে ফেলে জিম্মি করে রাখছে। রেহেনার বিরুদ্ধে ভূমিদস্যুতা সহ নারায়ণগঞ্জ আদালতে কয়েকটি মামলা রয়েছে। ফেরদৌসি আক্তার রেহেনা কিছু দিন পর পর বিভিন্ন সংগঠনে যোগদান করে সংগঠনেরই লোকদের  ব্ল্যাকমেইলিং করে থাকার অনেক অভিযোগ রয়েছে। রেহেনার বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সম্প্রতি মামলা হলেও পুলিশ তাকে এখন গ্রেফতার করতে পারেনি। অথচ ফেসবুক সচল রেখে মানুষের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালিয়ে যাচ্ছে। আরও জানা যায় ফেরদৌসি আক্তার রেহেনা নিজেকে মানবাধিকার কর্মী এবং সাংবাদিক পরিচয়ের পাশাপাশি একজন রোটারীয়ান পরিচয় দিয়ে যেভাবে অপকর্ম করছে ঠিক সে ভাবেই কয়েকজন নিজস্ব হলুদ সংবাদ কর্মী বানিয়ে মানুষকে আরও হয়রানী করছে। বর্তমানে প্রদীপ চন্দ্রের অন্যতম সহযোগী নারায়ণগঞ্জবাসী মক্ষিরানী ও বিভিন্ন অপকর্মের এই রেহেনাকে দ্রুত গ্রেফতারের জোর দাবী জানিয়েছে।